ভাবসম্প্রসারণ

মিথ্যা শুনিনি ভাই এই হৃদয়ের চেয়ে বড় কোন মন্দির কাবা নাই ।ভাবসম্প্রসারণ

 মিথ্যা শুনিনি ভাই এই হৃদয়ের চেয়ে বড় কোন মন্দির কাবা নাই ।

মিথ্যা শুনিনি ভাই এই হৃদয়ের চেয়ে বড় কোন মন্দির কাবা নাই ।ভাবসম্প্রসারণ


 ভাব সম্প্রসারণ : সব থেকে শ্রেষ্ঠ উপাসনালয় মানুষের হৃদয় বা মন ।কেননা পবিএ হৃদয়েই অবস্থান করে স্রষ্টা ।তাই হৃদয়ই স্বর্গ –হৃদয়েই সত্য –হৃদয়ই স্রষ্টা

হৃদয় আছে বলেই মানুষ সৃষ্টির সেরা জীব ।হৃদয় আছে বলেই মানুষের মধ্যে প্রেম আছে,কল্পনা আছে,সৌন্দযবোধ আছে,ধর্ম আছে ।পৃথিবীর সকল পাপ –পুণ্য ,ভালেঅ –মন্দ ,ধর্ম –অধর্মের পার্থক্য নির্ধারণে মানুষকে পরিচালিত করে তার মন ।এ মন বা হৃদয় দ্বারা পরিচালিত হয়ে মানুষ সৎ কাজ করে এবং আত্নার তৃপ্তি অর্জন করে ।দৈনন্দিন – জীবনের দ্বন্দ্ব-সংঘাত ,হিংসা –বিদ্বেষ,লোভ –লালসা ,স্বার্থচিন্তা ,কুমন্তনা প্রভূতির ক্লেদাক্ত সংস্পর্শে হৃদয়ের অকৃত্রিম বৃওিগুলো ক্রমশ ক্ষয়ে যেতে থাকে ।তা তখন বাইয়ের বস্তুগত জিনিসের প্রতিবিম্বে ভরপুর হয়ে ওঠে ।ব্যক্তির হৃদয় পূর্ন হয়ে যায় পাপে আর জঘন্যতায় ।তখন জীবন ও জগতের মহাসত্যের সন্ধানে –মসজিদে ,মন্দির ,গির্জায় উর্ধ্ধশ্বাসে ছুটে যেতে হয় ।মুক্তির সস্দানে তাকে বাইরে ভুবনে কেঁদে ফিরতে হয ।কিন্তু মুক্তি তো ভেতরেরর জিনিস ,তাকে কি আর বাইরে মসজিদ –মনদিরে পাওয়া যায় ?মুক্তি –সুধার স্বতঃস্ফূর্ত ঝরনাধারা থেকে পান করতে হলে তার উৎসমূল হৃদয়েই খোঁজ করতে হবে ।কারণ ,প্রকৃত মুক্তির সন্ধান রয়েছে হৃদয়ের স্বর্গীয় মন্দিরে ।তার ওপর বড় উপাসনালয় আর নেই ।

সুতরাং ,এ হৃদয়ই সমস্ত উপাসনালয়ে সর্বশ্রেষ্ঠ স্থান ।হৃদয় কলুষিত হলে দিনরাত আরাধনা করলেও কোনো ফল হবে না ।

 মিথ্যা শুনিনি ভাই এই হৃদয়ের চেয়ে বড় কোন মন্দির কাবা নাই ।

 ভাব সম্প্রসারণ : মানুষের হৃদয়ই হলেঅ সবচেয়ে বড় উপাসনালয় ।তাই উপাসনালয় খোঁজার জন্য মানুষকে দূরে যাওয়ার প্রয়োজন নেই ।

মানুষের স্বাভাবিক ধারনা হচ্ছে মসজিদ,মন্দির গির্জা,প্যাগোডা –এগুলো মহাপবিও স্থান ।শুধু এগুলোতে গিয়ে প্রার্থনা করলে সৃষ্টিকর্তার নাগাল পাওয়া যাবে ।কিন্তু সবচেয়ে পবিএ স্থান মানুষের হুদয় ।মানুষের হুদয়ের মধ্যেই সৃষ্টিকর্তা বিরাজমান ।হৃদয়কে কলুষিত রেখে বাহ্যিক উপাসনালয়ে আরাধনা করলেও কোনো লাভ হবে না ।স্রষ্টা মানুষকে ‘সৃষ্টির সেরা জীব’-এর সম্মান দিয়েছেন ।বিবেক –বিচার –বুদ্ধি দ্বারা পরিচালিত হওয়ার ক্ষমতা শুধু মানুষকে দিয়েছেন স্রষ্টা ।তাই মানুষ স্রষ্টা –প্রদ্রও বিবেক –বিচার –বুদ্ধি দ্বারা পরিচালিত হয়ে নিজের হৃদয়কে পবিএ ও কলুষমুক্ত রেখে অনায়সেই স্রষ্টার সন্ধান লাভ করতে পারে ।বাহ্যিক উপাসনালয়গুলোতে যাওয়ার আগে তাই হৃদয়কে পবিএ করতে হবে ।হৃদয়ের চেয়ে বড় কোনো মন্দির কাবা নেই –একথার তাৎপয ,হৃদয়কে উপাসনালয়ের মতো পবিএ রাখতে হবে ।আর তা সম্ভব হৃদয়ে মানবপ্রেমকে জাগ্রত রেখে ।মানুষের হৃদয় উপাসনালয়ের চেয়েও বড় ।মানুষের কল্যাণ –চেতনায় শুভ্র হৃদয় উপসনালয়ের মতো পবিএ রাখতে হবে ।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Back to top button